1. mehedi22h@gmail.com : admin :
  2. ibrahimkholil607@gmail.com : Ibrahim Hossain : Ibrahim Hossain
  3. rejoanullah668@gmail.com : rejoan ullah : rejoan ullah
শিরোনাম :
কলারোয়ায় একটি ভাঙ্গাড়ী দোকানে অগ্নিককান্ড ২০০ টাকার জন্য খুন করেছি সাতক্ষীরার কলারোয়ার বালিয়াডাঙ্গা বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড।। ৬টি দোকান পুড়ে ছাই সাতক্ষীরায় বন্ধুর হাতে বন্ধু খুন শহরের কাটিয়া মাঠপাড়ায় মাস্কহীন দু’জনকে মোবাইল কোর্টে ১ হাজার টাকা জরিমানা করোনার দ্বিতীয় ডোজ নিলেন সাতক্ষীরা’র দুই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শ্যামনগরে হরিণের চামড়া উদ্ধার জামায়াতের সাবেক আমির মকবুল আহমাদের অবস্থা সংকটাপন্ন মামুনুলকে ছিনিয়ে নিল হেফাজত কর্মীরা নারায়ণগঞ্জে রিসোর্টে ‘দ্বিতীয় স্ত্রী’সহ অবরুদ্ধ মাওলানা মামুনুল সোনারগাঁও এ মামুনুল হক কে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে

কলারোয়ায় ভূমি দস্যু নুরুলের দুর্ধর্ষ জমি জালিয়াতির শিকার হয়ে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২০
  • ৭৯ বার

রেজওয়ান উল্লাহ,কলারোয়া: বিনিময় সূত্রে জমির কাগজপত্র ভোগ দখল থাকা সত্বেও সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার ঝাঁপাঘাট এলাকা গ্রামের ইছহাক মণ্ডলের ছেলে ভূমিদস্যু নুরুল ইসলাম ও আনারুল ইসলাম নামের দুই ব্যক্তির গোপন কারসাজিতে একই গ্রামের ১৫ থেকে ২০ জনের নামে থাকা প্রায় ৫ কোটি টাকা মূল্যের ২.০৬৮৩ একর জমি জালিয়াতি করে রেকর্ডকরে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে৷

১/১ এর খতিয়ানের স্থানীয় এলাকাবাসী তাদের জমি ফেরত পেত মানববন্ধন করেছে৷ মঙ্গলবার (২৪ শে নভেম্বর) সকালে উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গনে উপজেলার ঝাঁপাঘাট এলাকাবাসীর আয়োজনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়৷ মানববন্ধনে হেলাতলা ইউনিয়নের ঝাঁপাঘাট গ্রামের মাহমুনুল হোক বলেন, স্থানীয় গ্রামের করিম সরদারের ছেলে মতলেব সরদার বাদি হয়ে কলারোয়া সহকারী কমিশনার ভূমি বরাবর এক অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে৷ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের জেলা প্রশাসক সাতক্ষীরা এর নামে থাকা বিএস ১/১ এর খতিয়ানের জমির মালিক থাকা অবস্থায় আইনের প্রতি আস্থা রেখে নিয়ম মেনেই ঝাঁপাঘাট গ্রামের করিম সরদারের ছেলে মতলেব সরদার, মমিন আলীর ছেলে একেএম ফজলুল হক, মৃত মুনসুর আলীর ছেলে জাহাঙ্গীর হোসেন, গোলাম হোসেনের ছেলে আবদুল আজিজ, আব্দুল ওহাবের ছেলে বাহার আলী, পুটে গাজীর ছেলে আহাদ আলী ও আতাব সরদারের ছেলে কেতাব আলী সরদার ২.০৬৮৩ একর জমি বিনিময় করা সূত্রে প্রাপ্ত হয়৷

প্রাপ্তির পর থেকে এলাকাবাসীরা নির্দিষ্ট বিআরএস ৩৫৭,৩৫৬, ৬০৭, ৫৯৬, ২৭৯, ৩৪৬, ৪২২, ২৯০, ৬৫৫, ৬৬০, ৬৬১, ৩২২, ২৯৩ ও ৩৪৫ নং দাগের জমিতে ভোগ দখল করে বসবাস করছেন৷ পরবর্তীতে এলাকার সাধুরূপ ভূমিদস্যু নুরুল ঝাঁপাঘাটের ইছহাক মন্ডলের ছেলে আনারুল ইসলাম,হেলাতলা ইউনিয়নের ভূমি সহকারী কর্মকতা (ভারপ্রাপ্ত)আবদুল্লাহ আল মামুন,উজ্জ্বল মুহুরী ও অদৃশ্য হেভিওয়েট ব্যাক্তিবর্গের ক্ষমতা বলে সাধারণ খেটেখুটে খাওয়া চাষি কৃষকের নামে থাকা সমুদয় সম্পত্তি জালিয়াতি করে নিজের নামে গোপনে রেকর্ড করে নিয়েছে৷

ভূমিদস্যু নুরুলের ভাইয়ের ছেলে মোঃআবদুল্লাহ মানববন্ধনে বলেন, পারিবারিক কলহে দুর্ধর্ষ জমি জালিয়াতির এ থলের বিড়াল বেরিয়ে আসতে শুরু হয় এলাকাবাসীর কাছে৷ বসতভিটা চাষের জমি শেষ অবলম্বন বাবা-মায়ের কবরের স্থান পর্যন্ত নিজের নামে করে নিয়েছে ভূমিদস্যু নুরুল ও তার ভাই আনারুল এমন অভিযোগ তুলে একেএম ফজলুল হক বলেন, ঝাঁপাঘাট গ্রামে অধিকাংশ মানুষই চাষের উপর নির্ভরশীল৷ দিনমজুর ও কৃষির উপরই সংসার চলে এলাকাবাসীর৷ বাড়তি কোনো আয় না থাকায় অগাধ সম্পত্তি কারও নাই যেটুকু আছে সেটুকুতেই কোনরকম ঠাই হয়েছে৷

কিন্তু সেই সম্পত্তির উপর কুনজর পড়েছে এলাকার ইসহাক মণ্ডলের ছেলে প্রভাবশালী নুরুল ইসলাম ও তার ভাই আনারুলের৷ তারা সাধারণ খেটেখুটে খাওয়া মানুষের জমি গোপনে অর্থের বিনিময়ে হেভিওয়েট কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে ঝাপাঘাট জে এল নং -২৬ ও নতুন বিএস খতিয়ান নং-৬৯৯, ৭০০, ৭০১, ৭০২, ৭০৩ তে জালিয়াতি করে ষোল আনা অংশ রেকর্ড সংশোধন করে ভূমিদস্যুদের নামে করে নিয়েছে৷

ভুক্তভোগী কেতাব আলী জানান, ভূমিদস্যুরা গোপনে আমাদের জমি তাদের নামে জালিয়াতির মাধ্যমে রেকর্ড করে নিয়েছে৷ শেষ অবলম্বন সম্পত্তি টুকু আমরা ১/১ খতিয়ানে ফেরত চাই৷ এজন্য ভুক্তভোগীরা স্থানীয় প্রশাসন ও সরকারের কাছে শেষ সম্বল সম্পত্তি টুকু ফেরত পেতে আকুল আবেদন জানান৷ বন্ধনে অংশগ্রহণ করেন স্থানীয় এলাকাবাসী শিক্ষক একেএম ফজলুল হক মহাদেব সরদার জাহাঙ্গীর আলম আহাদ আলী বাহার আজিজ হোসেন কেতাব আলী তবিবর রহমান আব্দুল্লাহ সেলিনা খাতুন, সালমা বেগম প্রমূখ৷

খবরটি শেয়ার করুন..

এ ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2019 news satkhira
Site Customized By NewsTech.Com